Sunday, December 4, 2022
Homeরাজশাহী বিভাগঅপরাধ নিয়ন্ত্রণে সক্ষমতা বেড়েছে আরএমপির

অপরাধ নিয়ন্ত্রণে সক্ষমতা বেড়েছে আরএমপির

নিউজ রাজশাহী ডেস্কঃ সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ভিন্নমাত্রা পেয়েছে অপরাধের ধরন। প্রযুক্তির দ্রুত বিকাশ ও সহজলভ্যতার কারণে সমাজে ঘটছে সাইবার অপরাধ। অপরাধের ধরন ও মাত্রা বিবেচনায় পুলিশের সক্ষমতা বৃদ্ধিরও প্রয়োজন দেখা দিয়েছে। সেসব অপরাধ দমনে রাজশাহী মহানগর পুলিশেরও সক্ষমতা বেড়েছে গত দুই বছরে। অপরাধ সংঘটনের পর দ্রুত সময়ে অপরাধীকে শনাক্ত করে আইনের আওতায় আনা সম্ভব হচ্ছে। এতে অপরাধ যেমন কমেছে, তেমনি ভুক্তভোগীরা পাচ্ছেন প্রতিকার।

মূলত রাজশাহী মহানগর পুলিশের বর্তমান কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিকের সময়ে আরএমপিতে বহুমাত্রিক অপরাধ নিয়ন্ত্রণে যুগোপযোগী অবকাঠামো উন্নয়নসহ অপরাধী শনাক্তে আধুনিক প্রযুক্তি সংযোজন করা হয়। এর সুফল পাচ্ছেন রাজশাহীর মানুষ। বিশেষ করে আরএমপির সাইবার অপরাধ নিয়ন্ত্রণ ইউনিটটি অত্যন্ত সফলভাবে প্রযুক্তি সংক্রান্ত অপরাধ নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে।

সংশ্লিষ্ট আরএমপি কমিশনারের উদ্যোগে স্থাপন করা হয়েছে সাইবার ক্রাইম ইউনিট। এ ইউনিটটি আরএমপির মেরুদণ্ড হিসেবে প্রতিষ্ঠা পেয়েছে। রাজশাহী মহানগর এলাকায় গত দুই বছরে ৩ হাজার ৪০৭টি সাইবার অভিযোগের মধ্যে ৩ হাজার ২৯১টির নিস্পত্তি হয়েছে। এসব অপরাধ সংঘটিত হয় ফেসবুক, ইমো, নগদ, বিকাশ, রকেট, লাইকি, টিকটক ও ম্যাসেঞ্জারের মাধ্যমে। ইমো হ্যাক ও বিকাশ প্রতারণার মাধ্যমে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার ঘটনায় আরএমপিতে অভিযোগ করে ভুক্তভোগীরা ফেরত পেয়েছেন টাকা। অপরাধে জড়িতদের শনাক্ত করে পুলিশ আইনের আওতায় আনতে পেরেছেন।

আরএমপির সংশ্লিষ্ট সূত্র আরও জানায়, সংস্থার সাইবার ইউনিটের মাধ্যমে রাজশাহী মহানগরীতে ছিনতাই ও নারীদের যৌন হয়রানিকারী অপরাধীদের দ্রুতসময়ে চিহ্নিত করে অধিকাংশ ক্ষেত্রে অপরাধী গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে পুলিশ।

রাজশাহী মহানগরীতে নারীদের ব্যাগ ও গলার চেইন ছিনতাই ছাড়াও মোটরসাইকেল চুরি ছিল নিত্যঘটনা। প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে ছিনতাইকারীদের দ্রুত সময়ে শনাক্ত করে তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। এর ফলে আরএমপিতে গত এক বছরে নগরীতে ছিনতাই হওয়া ৫০টি মোটরসাইকেল উদ্ধার করে চোর সিন্ডিকেটকে গ্রেফতার করা হয়েছে। উদ্ধার করা হয়েছে শতাধিক ব্যাগ, ল্যাপটপ, সোনার চেইন ও মোবাইল সেট।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ২০২০ সালের ১০ সেপ্টেম্বর কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক আরএমপি কমিশনারের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। দায়িত্ব নেওয়ার পর তিনি আরএমপিতে প্রতিষ্ঠা করেন অপারেশান কন্ট্রোল অ্যান্ড মনিটরিং সেন্টার। এর আওতায় প্রবেশ পথসহ রাজশাহী মহানগরজুড়ে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে স্থাপন করা হয়েছে পাঁচ শতাধিক সিসি ক্যামেরা। ফলে যানবাহনসহ কে বা কারা নগরীতে প্রবেশ করছে তা সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণ করা সম্ভব হচ্ছে।

এদিকে গত দুই বছরে নগর এলাকায় সক্রিয় পাঁচ শতাধিক কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যের ডেটাবেজ তৈরি করেছে আরএমপি। ডিজিটালি সংরক্ষিত এ ডেটাবেজের সাহায্যে তাদের ২৪ ঘণ্টা পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। এসব তরুণ কিশোরদের মাধ্যমে সংঘটিত অপরাপ ঘটলে সেই ডেটাবেজের তথ্য বিশ্লেষণ করে প্রকৃত অপরাধীকে শনাক্ত ও গ্রেফতার করা হচ্ছে।

অন্যদিকে আরএমপি কমিশনারের বড় উদ্যোগের মধ্যে রয়েছে ‘হ্যালো আরএমপি অ্যাপস’ চালু। নগরীর যে কোনো প্রান্তে কোনো ব্যক্তি বিপদগ্রস্ত হয়ে এ অ্যাপসে বার্তা পাঠিয়ে তাৎক্ষণিক পুলিশের সহায়তা নিতে পারেন। গত এক বছরে এ অ্যাম্পসটিতে বার্তা পাঠিয়ে পুলিশের তাৎক্ষণিক সহায়তা পেয়েছেন ২৩৮ জন ভুক্তভোগী।

এদিকে অপরাধ দমনে গত দুই বছরে আরএমপির বড় সাফল্য হলো পূর্ণাঙ্গ ফরেনসিক ল্যাব স্থাপন। আরএমপি কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক জানান, যুক্তরাষ্ট্রের প্রযুক্তি সহায়তায় রাজশাহীতে ফরেনসিক ল্যাব স্থাপনের কাজ চলমান রয়েছে। ল্যাব পরিচালনায় নিয়োজিতদের প্রশিক্ষণের কাজ চলছে।

তিনি আরও বলেন, বর্তমান সময়ে ডিজিটাল মাধ্যমে অধিকাংশ অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে। এসব অপরাধের ধরনও বিচিত্র। এসব অপরাধ প্রমাণে ফরেনসিক পরীক্ষার প্রয়োজন পড়ে। এখনো চাঞ্চল্যকর হত্যাকাণ্ডসহ এ ধরনের বড় অপরাধের ক্ষেত্রে ফরেনসিক পরীক্ষার প্রতিবেদনের জন্য আলামত ঢাকায় পাঠাতে হয়। প্রতিবেদন না পাওয়া পর্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ মামলার তদন্ত কার্যক্রম থেমে থাকে। রাজশাহীতে এ ল্যাবটি স্থাপনের কাজ সম্পন্ন হলে দ্রুত প্রতিবেদন যেমন পাওয়া যাবে, তেমনি বিচারপ্রার্থীকে দিনের পর দিন আর অপেক্ষা করতে হবে না। সেই সঙ্গে আদালতে বিচারিক কার্যক্রম পরিচালনা সহজ হবে।

এদিকে গত দুই বছরে রাজশাহী মহানগর পুলিশের উদ্যোগে গৃহীত গুরুত্বপুর্ণ কিছু কার্যক্রম নগরবাসীর নজরে পড়েছে। রাজশাহী পুলিশ লাইনে স্থাপন করা হয়েছে পুলিশ মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি জাদুঘর; যাতে স্থান পেয়েছে মুক্তিযুদ্ধে রাজশাহীতে পুলিশের প্রতিরোধ যুদ্ধের নানান স্মৃতি ও শহিদ পুলিশদের নাম ও পরিচয়। মুক্তিযুদ্ধে রাজশাহী পুলিশ নামের একটি তথ্যমূলক বইও প্রকাশ করা হয়েছে। বইটি সুধীমহলে সাড়া ফেলেছে।

কোভিডকালীন আরএমপির উদ্যোগে সর্বপ্রথম অক্সিজেন ও ব্ল্যাড ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করা হয়। কোভিড আক্রান্তদের মাঝে জরুরিভিত্তিতে ১ হাজার ১২০ জনকে অক্সিজেন সরবরাহ করে পুলিশ। রোগীদের জীবন রক্ষার্থে বিপুল সংখ্যক ব্ল্যাড ব্যাগ দিয়েছে আরএমপি। আরএমপিতে কর্মরত পুলিশ সদস্যদের দ্রুত সুচিকিৎসার্থে চালু করা হয়েছে টেলিমেডিসিন প্রোগ্রাম। ভারতসহ বিদেশে চিকিৎসা নিতে আগ্রহী প্রায় ১ হাজার ৭৯১ জন পুলিশ সদস্যকে উন্নত চিকিৎসার জন্য এ সেবা সহায়তা দিয়েছে।

সূত্র মতে, আরএমপি কমিশনারের উদ্যোগে বিদ্যমান বিট ও কমিউনিটি পুলিশিং কার্যক্রমকে জোরদার করা হয়েছে। বিশেষ এ কার্যক্রমের মাধ্যমে ছোটখাটো অধিকাংশ বিরোধের নিস্পত্তি হয়েছে। চাঞ্চল্যকর অপরাধের মামলা নিস্পত্তিতেও আরএমপির সাফল্যের চিত্র পাওয়া যায়। শাহমখদুম থানা এলাকায় চাঞ্চল্যকর ২২ লাখ টাকা ডাকাতি মামলার আসামি গ্রেফতার ও টাকা উদ্ধার করা হয় ঘটনার মাত্র কয়েক ঘণ্টার মধ্যে। রাবির মেধাবী ছাত্র মাহমুদ হাবিব হিমেলের মর্মান্তিক ট্রাকচাপায় মৃত্যুর ঘটনার পরপরই ট্রাকচালককে গ্রেফতার করে শিক্ষার্থীদের ক্ষোভ প্রশমন করা হয়। পুলিশের দ্রুত পদক্ষেপের কারণে রাবিতে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসে।

আরএমপি গত দুই বছরে সামাজিক কর্মকাণ্ডে ব্যাপক ভূমিকা রেখেছে। করোনা সচেতনতা ছাড়াও মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ, ১১ হাজার মানুষের মাঝে করোনাকালীন ত্রাণ বিতরণ, ১০ হাজারের বেশি শীতবস্ত্র বিতরণ, অ্যান্টিজেন র্যা পিড টেস্ট বুথ চালু, আরএমপির উদ্যোগে নিয়মিত ক্রীড়া অনুষ্ঠানের আয়োজন, ধর্মীয় সম্প্রীতি রক্ষায় নগরীর পাড়া-মহল্লায় সম্প্রীতি সমাবেশ, দরিদ্র শিক্ষার্থীদের আর্থিক সহায়তা ও বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।

আরএমপির এসব কার্যক্রম সম্পর্কে জানতে চাইলে পুলিশ কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক বলেন, পুলিশ জননিরাপত্তা বিধানের পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাণ্ডেও রয়েছে। সমাজে অপরাধের ধরন ও বৈচিত্র্যের সঙ্গে তাল মিলিয়ে অপরাধ দমন ও নিয়ন্ত্রণে আরএমপির সক্ষমতা অনেক বেড়েছে গত দুই বছরে। এসব কার্যক্রমে সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের সহায়তা নেওয়া হয়েছে। আমি আজ যা করছি তার সুফল আগামীতেও পাবে রাজশাহীর মানুষ। পুলিশকে জনবান্ধব করে তোলার অংশ হিসেবেই সবকিছু করা হয়েছে।

রাজশাহী বিভাগ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

সর্বাধিক জনপ্রিয়