15.4 C
New York
রবিবার, মে ১৯, ২০২৪
spot_imgspot_imgspot_imgspot_img

ডাবলু সরকারকে বহিস্কারের দাবিতে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী পরিবারের মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক: সম্প্রতি রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকারের একটি অশ্লীল ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর থেকেই সুশীল সমাজ, সাধারণ মানুষ ও তৃণমূল নেতাকর্মীদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা যায়। একজন শীর্ষ নেতার এমন নৈতিক বিবর্জিত কুরুচিপূর্ণ ভিডিও দেখে নেতাকর্মীদের ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ ঘটতে শুরু কয়েক দিন থেকেই। দল থেকে বহিষ্কারের দাবি উঠে৷ এবার সেই নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকারকে বহিস্কারের দাবিতে রাজপথে গোটা রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগ পরিবার।

সোমবার (২৭ মার্চ) সকাল ১১টা থেকে ‘নীতিনৈতিকতা–বিবর্জিত রাজনীতির দুষ্টক্ষত ডাবলু সরকারকে আওয়ামী লীগ থেকে বহিস্কার করে বিচারের আওতায় আনতে হবে।’ দাবিতে দীর্ঘ দুই ঘন্টার মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে ‘রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ’ ব্যানারে উপস্থিত ছিলেন; নগর আওয়ামী লীগের বর্তমান কমিটির বেশিরভাগ নেতৃবৃন্দ, থানা ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক বৃন্দ, নগর যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, যুব মহিলা লীগসহ সকল অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ।

এর আগে গত ফেব্রুয়ারী মাস জুড়ে দফায় দফায় নগরীর বিভিন্ন এলাকায় সাধারণ মানুষের খন্ড খন্ড কর্মসূচি পালিত হয়। এসময় কর্মসূচিতে হামলার ঘটনাও ঘটে। ‘সচেতন রাজশাহীবাসী’ ও ‘রাজশাহী আওয়ামী পরিবার’র নামে এসব কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। তবে এবার গোটা রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগ পরিবার ডাবলু সরকারকে দলীয় পদ থেকে অপসারণ ও দল থেকে বহিস্কারের দাবিতে মানববন্ধন করলো।

“নীতি নৈতিকতা বিবর্জিত রাজনীতির দুষ্টক্ষত ডাবলু সরকারকে আওয়ামী লীগ থেকে বহিস্কারের দাবীতে মানববন্ধন” “ডাবলু সরকারের নোংরা ভিডিও, রাজনীতিতে অশনিসংকেত ও সমাজের জন্য বিপজ্জনক, অবিলম্বে ডাবলু সরকারকে রাজনীতি থেকে অপসারণ করতে হবে।” শীর্ষক কয়েকটা ব্যানারে মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করেন শতাধিক দলীয় শীর্ষ নেতৃবৃন্দ। এছাড়াও এই মানববন্ধনে যুক্ত হয় কয়েকটি সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনসমূহ সহ সাবেক ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ।

মানববন্ধনে শীর্ষ নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন; রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা নওশের আলী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোস্তাক হোসেন, আহসানুল হক পিন্টু, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, নগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আসলাম সরকার, আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোসাব্বিরুল ইসলাম, স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা. ফ ম আ জাহিদ, নগর যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তৌরিদ আল-মাসুদ রনি, সাংগঠনিক সম্পাদক মুকুল শেখ, নগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বিপুল হোসেন, নগর ছাত্রলীগের সভাপতি নূর মোহাম্মদ সিয়াম, সাধারণ সম্পাদক সিরাজুম মবিন সবুজ, নারী নেত্রী এ্যাডভোকেট শিখা, নগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শফিকুজ্জামান শফিক, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ হাসান রাজিব, বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রীর রাজশাহী মহানগর শাখার সাবেক সভাপতি আবু রায়হান, রাজশাহী কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি রাসিক দত্ত, সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম জাফর প্রমুখ।

মানববন্ধনে উপস্থিত আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা বলেন; ১৮ ফেব্রুয়ারি একটি মামলা হয়েছিলো, সেই মামলাটি দীর্ঘদিন এক অবস্থায় আছে। আমরা ভেবেছিলাম এইটার একটা সুরাহ হবে। সুরাহ হয়ে যেই সিদ্ধান্ত আসুক, যদি পজিটিভ সিদ্ধান্ত আসে দলের জন্য মঙ্গল ও নেগেটিভ সিদ্ধান্ত আসলেও দলের জন্য মঙ্গল। তাই আমরা তাকে অনুরোধ করব এ মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত তিনি যেন সভা-সমাবেশ থেকে বিরত থাকে।

মানববন্ধনে উপস্থিত যুবলীগ নেতারা বলেন; যদি ভিডিওটি সত্যি হয়, তাহলে ডাবলু সরকারের পদত্যাগ দাবী করছি। উনি যদি নিজে পদত্যাগ করে তাহলে ভালো। অন্যথায় যদি তিনি পদত্যাগ না করে তাহলে আমরা সকল আওয়ামী পরিবারের সন্তানেরা তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে কেন্দ্র থেকে তাকে পদত্যাগ করতে বাধ্য করবো।

রাজশাহী মহানগর ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দরা বলেন; রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের যে পূর্নাঙ্গ কমিটি আছে, তাদের একটি বর্ধিত সভার মাধ্যমে দলের যেটা ভালো হবে সেই সিদ্ধান্তে নেওয়া উচিত। নাহলে তার নোংরামির যেই খণ্ডিত অংশ, এটা কিন্তু আমাদের নৌকার উপর প্রভাব ফেলবে।

প্রসঙ্গত, গত ১৭ ফেব্রুয়ারি ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম গুলোতে রাজশাহী মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকারের একটি ভিডিও ভাইরাল হয়। ভিডিওটিতে শীর্ষ এ নেতার হোয়াটসঅ্যাপে একটি ভিডিও কলের রেকডিংয়ে দেখা যায়। বিভিন্ন সূত্র থেকে দাবি করা হয় ভিডিও টিতে উলঙ্গ অবস্থায় তিনি অসামাজিক কর্মকান্ড করে।

এ ঘটনার প্রেক্ষিতে গত ১৮ ফেব্রুয়ারি দুপুরে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার তাঁকে নিয়ে একটি আপত্তিকর ভিডিও ছড়ানোর অভিযোগে নগরের বোয়ালিয়া থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা করেন। এতে তিনি ভিডিওটিকে এডিট করা বলে দাবি করেছেন।

spot_imgspot_imgspot_imgspot_img
আজকের রাজশাহী
spot_imgspot_imgspot_imgspot_img

বিনোদন

- Advertisment -spot_img

বিশেষ প্রতিবেদন

error: Content is protected !!

Discover more from News Rajshahi 24

Subscribe now to keep reading and get access to the full archive.

Continue reading