11.1 C
New York
রবিবার, এপ্রিল ১৪, ২০২৪
spot_imgspot_imgspot_imgspot_img

গরু পাচারকাণ্ডে তৃণমূলের দেবের পাশে বিজেপির মিঠুন

শুধু পর্দাতেই দেব-মিঠুনের ভালোবাসা থেমে নেই। পর্দায় হোক কিংবা বাস্তব, একজন আরেকজনকে আগলে রাখতে ভোলেন না।

তৃণমূল এমপি দেবের বাবার চরিত্রে অভিনয় করেছেন বিজেপি নেতা মিঠুন চক্রবর্তী। এবার দুর্নীতি ইস্যুতেও পর্দার ছেলের পাশেই দাঁড়ালেন বর্ষীয়ান অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তী।

কিছুদিন আগেই ব্রেন স্ট্রোকের শিকার মিঠুনকে দেখতে হাসপাতালে ছুটে গিয়েছিলেন দেব। কারণ মিঠুন তার কাছের মানুষ। রাজনীতির রং আলাদা হলেও দুজনের সম্পর্ক অটুট।

সম্প্রতি গরু পাচার মামলায় ইডি (এনফরসমেন্ট ডিরেক্টর) দ্বিতীয়বারের জন্য তলব করেছে এমপি দেবকে। সেই প্রসঙ্গে দেবের পাশেই দাঁড়ালেন তিনি।

আগামী ২১ ফেব্রুয়ারি দিল্লিতে ইডির দফতরে হাজিরা দিতে হবে দেবকে। এ প্রসঙ্গে মিঠুন বলেন, ‘আমি বিষয়টা নিয়ে ওয়াকিবহাল নই। আমাকে যদি জিজ্ঞাসা করেন তা হলে বলব, দেব ওইরকম ছেলেই নয়।

এটা আমি ব্যক্তিগতভাবে বলছি। কিন্তু যে হেতু এটা (ইডি) একটা সংস্থা, তারা তাদের অফিসিয়াল ডিউটি করছে। এটা দেবের ব্যাপার, দেব কী করবে।

ওদিকে দেব ইডির তলব প্রসঙ্গে মুখ খুলেছেন। দেব স্পষ্ট করে বলেন, ‘দেশের প্রতি, দেশের মানুষের প্রতি আমার কর্তব্যকে সবচেয়ে এগিয়ে রাখি। আমি আমার কর্তব্য পালন নিশ্চয় যাব’।

জানা যায়, প্রিভেনশন অব মানি লন্ডারিং অ্যাক্টের আওতায় ডেকে পাঠানো হয়েছে দেবকে। গরু পাচার মামলায় গত বছর গ্রেফতার হন অনুব্রত মণ্ডল।

এই মামলাতেই বেশ কিছু কাগজপত্র নিয়ে দেবকে হাজিরা দিতে বলেছে ইডি। এর আগে ২০২২ সালেও একই মামলায় দেবের বয়ান রেকর্ড করেছিল ইডি। পাশাপাশি ২০২২ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি দেবকে প্রায় পাঁচ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করেছিল সিবিআই।

সিবিআই সূত্র বলছে, গরু পাচারকাণ্ডে বিভিন্ন সাক্ষীকে জেরা করার সময় দেবের নাম উঠে এসেছিল, সেই কারণেই তাকে হাজিরা দিতে বলা হয়েছে।

অন্যদিকে রাজনীতির ময়দানে ফেরার ইঙ্গিত দিয়েছেন দেব। মানুষের স্বার্থে রাজনীতিতে ফেরার কথা জানিয়েছেন দেব। এরমাঝেই দেবকে ইডির তলবে সরগরম পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতি।

spot_imgspot_imgspot_imgspot_img
আজকের রাজশাহী
spot_imgspot_imgspot_imgspot_img

বিনোদন

- Advertisment -spot_img

বিশেষ প্রতিবেদন

Discover more from News Rajshahi 24

Subscribe now to keep reading and get access to the full archive.

Continue reading